ইতিহাস-ঐতিহ্য

বাংলাদেশের গর্ব: জাদু সম্রাট পি.সি. সরকার

হ্যালোডেস্ক

পারফরমিং আর্টসের মধ্যে সম্ভবত ম্যাজিকই একমাত্র শিল্প যা’ কখনও মানুষকে দু:খ দেয়না। ফুটবল, ক্রিকেট, টেনিস ভক্তরা প্রিয় দল বা মানুষ ব্যর্থ হলে মাঠের মধ্যে কী রকম উন্মত্ত আচরণ করেন, দু:খ পান, কেঁদে ফেলেন, তা’তো খবরের কাগজের পাতা খুললেই রোজই দেখা যায়। ম্যাজিক কিন্তু চোখে জল আনেনা। বরং সারাদিনের ক্লান্তি, বিরক্তি, হতাশা, ক্ষোভ, যন্ত্রণা, বেদনা থেকে মুক্তি আনে ম্যাজিক। নির্ভেজাল বিনোদনের এরকম মাধ্যম দুনিয়ায় আর দ্বিতীয়টি আছে বলে আমার মনে হয় না।

পি.সি. সরকারের ছেলেবেলা
পুরো নাম প্রতুল চন্দ্র সরকার। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বাঙালিদের মধ্যে পি.সি. সরকার অন্যতম। জাদুশিল্পকে তিনি সব রাষ্ট্রে ছড়িয়ে দিয়ে বিশ্বের বুকে বাংলা ও বাঙালিকে গৌরবোজ্জ্বল জাতি হিসেবে পরিচিত করিয়েছেন।

১৯১৩ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের টাঙ্গাইল জেলার আশেকপুর গ্রামে জন্ম তার। আর শিক্ষাজীবন কাটে স্থানীয় শিবনাথ হাইস্কুলে। বাবার নাম ভগবান চন্দ্র সরকার। মা কুসুম কামিনী দেবী। পিসি সরকাররা ছিলেন দুই ভাই। পিসি সরকার বড়, ছোট ভাই অতুল চন্দ্র সরকার বা এসি সরকার। ছেলেবেলা থেকেই জাদুবিদ্যায় আগ্রহ তার। আবার জাদুবিদ্যায় বংশগত ঐতিহ্যও রয়েছে পিসি সরকারের। তখনকার খ্যাতিমান জাদুকর গণপতি চক্রবর্তী ছিলেন তার জাদুবিদ্যার গুরু। ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় তিনি জাদু দেখানো শুরু করেন। তাতে লেখাপড়া বাধাগ্রস্ত হয়নি। ১৯২৯ সালে প্রবেশিকা এবং ১৯৩৩ সালে গণিত শাস্ত্রে অনার্সসহ বিএ পাস করে জাদুকেই পেশা হিসেবে গ্রহণ করেন তিনি।

জাদুশিল্পে পি.সি. সরকার
জাদুশিল্পে পিসি সরকারের কৃতিত্ব ছিল বেশ— তিনি বহু প্রাচীন জাদু খেলার মূল সূত্র আবিষ্কার করেন। করাত দিয়ে মানুষ দিখণ্ডিত করার খেলাটি দেখে দর্শকরা অভিভূত হয়ে পড়েন। এমন শ্বাসরুদ্ধকর জাদুতে অনেকেই অজ্ঞান হয়ে যেতেন। সেই সময় দ্বিখণ্ডিত তরুণীর কুশল বার্তা জানতে বিবিসি অফিসে এত টেলিফোন আসতে থাকে যে, দুই ঘণ্টা পর্যন্ত অফিসের সব টেলিফোন লাইন ব্যস্ত ছিল। নিউইয়র্ক টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ খেলাটি দেখার জন্য তাকে বিশেষ বিমানে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যায়। যুক্তরাষ্ট্রে তিনি অভূতপূর্ব জনপ্রিয়তা ও সম্মান লাভ করেন। ‘ওয়াটার অব ইন্ডিয়া’ তার আরেকটি জনপ্রিয় খেলা। ১৯৩৪ সালে তিনি সর্বপ্রথম বিদেশে গমন করেন এবং ৭০টির মতো দেশে জাদু প্রদর্শন করে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পান। তার ফোর্স রাইটিং খেলাটি ভারতে মহা আলোড়ন সৃষ্টি করে। তার পরই বিদেশে একটি বিশেষ দ্রুতগামী রেলগাড়ি আসার মাত্র ৩৮ সেকেন্ড আগে তিনি হাতকড়া বন্ধ অবস্থায় ট্রেন লাইন থেকে মুক্ত হয়ে আসেন। এই হাতকড়াটি খুলতে ১৭টি চাবি ব্যবহার করা হতো। তার জাদু অস্ট্রেলিয়ান টেলিভিশন, বিবিসি, শিকাগোর ডারলিউ জিএনটিভি এবং নিউইয়র্কের এনবিসি ও সিবিএস টেলিভিশনে বহুবার প্রদর্শিত হয়েছে।

জাদু শিল্পী পি.সি. সরকার

ব্রিটিশদেরও আতংকিত করেছিল
সময়টা ছিল ১৯৫৬ সালের ৯ই এপ্রিল রাত সোয়া নয়টা। হঠাৎ শত শত দর্শকের টেলিফোনে বিবিসি’র স্যুইচবোর্ড কেঁপে উঠেছিল। ঘটনাটি ছিল, কসাইখানায় যেভাবে মাংস কাটা হয়, সে রকম একটি টেবিলে রাখা হয়েছে সতেরো বছর বয়সী এক তরুণীকে। আর রহস্যময় চেহারার এক জাদুকর টেবিলের উপর ঐ তরুণীর শরীর ধারালো ব্লেড দিয়ে দ্বিখন্ডিত করে মাংস কাটছেন। এই পরিস্থিতি এমন একটা উত্তেজনা তৈরি করেছিল যে, কিছু একটা ভুল হয়েছে বলে মনে করেছিলেন অনুষ্ঠানের সাথে সম্পৃক্তরা। কারণ জাদুকর এবং তার সহকারী ঐ তরুণীকে পুনরুজ্জীবিত করার চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু কোনো সাড়া পাওয়া যাচ্ছিল না। তরুনীর শরীর দ্বিখন্ডিত রেখেই জাদুকর তার মুখ এবং মাথা কালো কাপড় দিয়ে ঢেকে দেন। তখন উপস্থাপক রিচার্ড ডিম্বলবি ক্যামেরার সামনে এসে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেছিলেন। এর ফলাফল যা দাঁড়িয়েছিল, তা হলো আতংকিত দর্শকদের টেলিফোনের ঝড় উঠেছিল। যুক্তরাজ্যের দর্শকরা মনে করেছিলেন, তখনই তারা তাদের টেলিভিশনের পর্দায় ভয়াবহ খুনের ঘটনা সরাসরি দেখলেন। তারা ভড়কে গিয়েছিলেন। আতংকিত হয়ে তারা টেলিফোন করছিলেন বিবিসিতে। পশ্চিমাদের কাছে এই অনুষ্ঠানকে পিসি সরকারের জন্য একটা অভ্যূত্থান বলা যায়। কারণ সে সময় লন্ডনের ডিউক অব ইয়র্ক থিয়েটার তিন সপ্তাহের জন্য ভাড়া নেয়া হয়েছিল পি সি সরকারের জাদু প্রদর্শনের জন্য। কিন্তু প্যানোরমার অনুষ্ঠানটি আলোড়ন সৃষ্টি করলে সেটি তাঁর জন্য একটা বড় সুযোগ তৈরি করে দেয়। পরদিন লন্ডনে সংবাদপত্রে প্রথম পৃষ্ঠায় খবর ছাপা হয়েছিল।

১৯৫০ সালে তিনি আমেরিকান জাদুকর সোসাইটি এবং জাদুকরদের আন্তর্জাতিক সংগঠনের আমন্ত্রণে শিকাগো গিয়েছিলেন জাদু দেখাতে। ছবির কপিরাইট COLLECTION OF SAILESWAR MUKHERJEEImage caption পি সি সরকারের আরেকটি জনপ্রিয় জাদু ওয়াটার অব ইন্ডিয়া তখন থেকেই তিনি যুক্তরাষ্ট্রে জনপ্রিয় হয়েছিলেন।

জাদু সম্রাটের বিদায়
১৯৭০ সালের ডিসেম্বরে চিকিৎসক তাঁকে অতিরিক্ত ভ্রমণ না পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিন্তু চিকিৎসকের পরামর্শ উপেক্ষা করে জাপান গিয়েছিলেন শো করতে। ১৯৭১ সালের ৬ জানুয়ারি পি.সি. সরকার জাপানে অনুষ্ঠান মঞ্চেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

ফেসবুক পেজ

আর্কাইভ

ক্যালেন্ডার

ডিসেম্বর ২০১৯
সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
« নভেম্বর    
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১