তরঙ্গটুডে

চট্টগ্রামে উদ্বোধন হয়ে গেলো ‘সংগীতের জাতীয় উৎসব ও সম্মেলন’

হ্যালোডেস্ক

১৮ জুন ২০২২


সংগীতশিল্পীদের সকল দাবি বিবেচনা করার আশ্বাস দিয়ে শুক্রবার (১৭ জুন) সন্ধ্যায় ‘সংগীতের জাতীয় উৎসব ও সম্মেলন’ উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, ‘করোনাকালীন সময়ে ২০ হাজার সংগীতশিল্পীকে সহায়তা দেওয়া হয়েছে। আমি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নেওয়ার সময় শিল্পীদের বিশেষ সহায়তা তহবিলে ছিল ৩০ কোটি টাকা। এখন ফান্ড ৫০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে।’ শিল্পীদের যেসব দাবি আছে তা বিবেচনা করার আশ্বাস দেন মন্ত্রী।

রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যার সভাপতিত্বে উদ্বোধনী আয়োজনে বক্তব্য রাখেন সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ-এর অন্যতম মহাসচিব এবং গীতিকবি সংঘ বাংলাদেশ-এর সভাপতি শহীদ মাহমুদ জঙ্গী, সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ-এর মহাসচিব এবং মিউজিক কম্পোজার্স সোসাইটি বাংলাদেশ-এর সভাপতি নকীব খান, সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ-এর আরেক মহাসচিব এবং সিংগার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-এর সাধারণ সম্পাদক খ্যাতিমান কণ্ঠশিল্পী কুমার বিশ্বজিৎ।

সভাপতির বক্তব্যে বরেণ্য রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা বলেন, ‘সারা দেশের সংগীতের সঙ্গে জড়িতদের এক ছাতার নিচে আনায় হচ্ছে এ সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ-এর লক্ষ্য। ৫০ বছর ধরে গীতিকবি, সুরস্রষ্টা ও কণ্ঠশিল্পীরা নানা অনিয়ম, অবহেলা আর প্রাপ্য সম্মান ও সম্মানি থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছেন। এ পরিস্থিতি উত্তরণের লক্ষ্যে কাজ করে চলেছে সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ।’

শহীদ মাহমুদ জঙ্গী তার বক্তব্যে সংগীতশিল্পীদের উন্নয়নে বেশ কিছু দাবি তুলে ধরে বলেন, ‘কপিরাইট অফিসের যে ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে সেখানে শিল্পীদের পৃথক অফিস বরাদ্দ দেওয়ার পাশাপাশি সংগীত অ্যাকাডেমি গড়ে তোলার দাবি জানাই।’

নকীব খান বলেন, ‘সংগীতের উন্নয়নে সকলকে কাজ করতে হবে। পৃথিবীর সপ্তম ভাষা বাংলা। বাংলা গানকে পৃথিবীর দরবারে পরিচিত করতে সকল শিল্পীকে একযোগে কাজ করতে হবে।’

কুমার বিশ্বজিৎ বলেন, ‘সংগীত অঙ্গনে সম্পৃক্ত সকলকে নিয়ে আমাদের এ উদ্যোগ। এ উদ্যোগ সফল করার জন্য সকলকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানাই।’

এরপর বিকাল ৬টা নাগাদ শুরু হয় বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের প্রথম পর্ব। যার মধ্য দিয়ে উঠে আসে চট্টগ্রামের সংগীত ও সংস্কৃতি। শুরুটা হয় সমরজিৎ রায়ের উচ্চাঙ্গসংগীত পরিবেশনার মাধ্যমে। এরপর পর্যায়ক্রমে মঞ্চে গান পরিবেশন করেন চট্টগ্রাম সংগীত ভবনের শিল্পীরা, প্রেমসুন্দর বৈষ্ণবের কণ্ঠে চট্টগ্রামের প্রচলিত আঞ্চলিক গান, রাঙামাটির জুম ঈসথেটিকস কাউন্সিল-এর পাহাড়ি ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠীদের পরিবেশনা, চট্টগ্রামের ব্যান্ড দূরবীন।

সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ-এর অন্যতম মহাসচিব ও গীতিকবি সংঘ বাংলাদেশ-এর সভাপতি শহীদ মাহমুদ জঙ্গী জানান, চট্টগ্রামের সফল আনুষ্ঠানিকতা শেষে আগামী ২৪ জুন এই উৎসব হচ্ছে সিলেট জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে। এরপর ১ জুলাই হচ্ছে বরিশাল জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে। এরপর ১৬ জুলাই হবে উৎসবের চূড়ান্ত অনুষ্ঠান ও জাতীয় সম্মেলন ঢাকায়- বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি কমপ্লেক্স-এ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ-এর তথ্য প্রযুক্তি ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সচিব হাসান আবিদুর রেজা জুয়েল।

সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ মনে করে, ৫০ বছর ধরে গীতিকবি, সুরস্রষ্টা ও কণ্ঠশিল্পীরা নানা অনিয়ম, অবহেলা আর প্রাপ্য সম্মান ও সম্মানি থেকে বঞ্চিত হয়ে আসছেন। এ পরিস্থিতি উত্তরণের লক্ষ্যে গত বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের ১০ জুলাই বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো গীতিকবি, সুরকার ও কণ্ঠশিল্পীরা এক ছাতার নিচে আসেন। গঠিত হয় ‘সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ’।

সার্বিক সংগীতের মানোন্নয়ন, সম্মান ও সম্মানির জন্য একসঙ্গে লড়াই করার প্রত্যয় নিয়ে এই প্ল্যাটফর্ম গঠন করা হয়। সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ একটি অরাজনৈতিক ও অলাভজনক সংগঠন। সংগীতের সব পক্ষকে আস্থায় নিয়ে কাজ করে যাওয়ার জন্য কার্যকর পদক্ষেপ নিশ্চিত করার চেষ্টাই এই সংগঠনের উদ্দেশ্য।

সংগীত ঐক্য বাংলাদেশ-এর প্রথম ও বর্তমান কমিটিতে রয়েছেন, সভাপতি রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, মহাসচিব (৩ জন) শহীদ মাহমুদ জঙ্গী, নকীব খান ও কুমার বিশ্বজিৎ, অর্থ ও দফতর সচিব আসিফ ইকবাল, তথ্যপ্রযুক্তি ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক সচিব হাসান আবিদুর রেজা জুয়েল, সাংস্কৃতিক সচিব বাপ্পা মজুমদার, প্রচার ও প্রকাশনা সচিব জুলফিকার রাসেল এবং নির্বাহী সদস্য মানাম আহমেদ, কবির বকুল, শওকত আলী ইমন ও জয় শাহরিয়ার।

ফেসবুক পেজ

আর্কাইভ

ক্যালেন্ডার

July 2024
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031