ঋতুর সাজ

ফ্যাশনে হেমন্তের ছোঁয়া

মডেল: নাদিয়া আফরিন

হ্যালোডেস্ক

বদলে গেছে ঋতু। শরতের কাশফুল আর শিশিরভেজা দূর্বাঘাস মাড়িয়ে প্রকৃতিতে এলো হেমন্ত। হেমন্তের অন্য নাম যেমন নবান্ন তেমনই ফ্যাশন ধারাকেও রাঙিয়ে তোলে হেমন্ত। হেমন্তের পরশে পোশাক থেকে সাজ সবক্ষেত্রেই নিয়ে আসা যায় স্টাইলিশ লুক!

ষড়ঋতুর দেশ বাংলাদেশ। ঋতুচক্রের হিসাবমতে কার্তিক ও অগ্রহায়ণ মিলে হেমন্তকাল। হেমন্ত আসে ধীর পদক্ষেপে, শীতের পরশ আলতো করে গায়ে মেখে। হালকা কুয়াশার চাঁদরে ঢাকা থাকে হেমন্তের সকাল। শিশিরভেজা ঘাসের ডগায় যেন মুক্তোর মেলা বসে। শিশিরস্নাত হেমন্ত প্রভাব ফেলে আমাদের জীবনযাপনে। হেমন্তের হাওয়ায় সকাল ও সন্ধ্যার দিকে এখন থেকেই হালকা ঠাণ্ডা গায়ে লাগতে শুরু করেছে। তাই ক’দিন আগেও যেখানে দিব্যি স্লিভলেস কিংবা শর্টস্লিভে চলে যেত, এখন সেখানে ফুলস্লিভে আরাম মিলছে। উৎসব অনুষ্ঠানে স্নিগ্ধ সাজের জায়গায় চকচকে সাজে এখন চোখ হারায়।

হালকা ঠাণ্ডা বাতাসের এ সময়টাতে দৈনন্দিন কাজে বাইরে যেতে এমন পোশাক নির্বাচন করুন যা গরমও লাগবে না আবার ঠাণ্ডা বাতাসেও আরাম দিবে। দাওয়াতে পরতে পারেন স্টাইলিশ বিভিন্ন ধরনের পোশাক। স্লিভলেস কিংবা হাফস্লিভের চেয়ে ফুলস্লিভ পোশাকই এখন বেশি আরামদায়ক। দৈনন্দিন কর্মক্ষেত্র কিংবা বাইরে যাওয়ার জন্য জর্জেট, সিল্ক, তসরসহ বিভিন্ন ধরনের সিনথেটিক কাপড়ের পোশাক এখন আরামদায়ক এবং মানানসই। বিশেষ করে জর্জেটের ওয়েস্টার্ন ধাঁচের দেশীয় কুর্তি, টপস বা টিউনিক রেগুলার আউটফিট হিসেবে এখনকার আবহাওয়া উপযোগী এবং স্টাইলিশ লুক আনবে। রঙের ক্ষেত্রে হেমন্তের তালিকায় রাখতে পারেন লেমন, হালকা হলুদ, বাদামি, পিচ, সবুজ, লাল, গোলাপি, বেগুনি, ব্লুসহ বিভিন্ন রং।

গহনা ছাড়া সাজে পূর্ণতা আসে না। তবে যে কোনো গহনা খুব সুন্দর হলেই যে, তা সব পোশাকের সঙ্গে ভালো লাগবে তা কিন্তু নয়। ফ্যাশনেবল অক্সি গোল্ড, অ্যান্টিক গোল্ড, রেডিশ গোল্ড পলিশের খুব ছোট আকারের টপ, লকেট বা ব্রেসলেটের মতো সোনার গহনা পরা যেতে পারে। কিন্তু এ ধরনের পোশাকের সঙ্গে সবচেয়ে বেশি ভালো লাগবে অক্সিডাইস, সিলভার, তামা, অ্যান্টিক বা মেটালের গহনা। ওয়েন্টার্ন পোশাকের সঙ্গে এ ধরনের গহনা গেট-টুগেদার, বিভিন্ন পার্টিতেও অনায়াসে পরা যায়। সে ক্ষেত্রে ট্রেডিশনাল চুড়ি না পরে হাতভর্তি করে আঁকাবাঁকা বিভিন্ন শেপের চুড়ি বা বালা কিংবা দুই-তিনরকম ব্রেসলেট একসঙ্গে পরতে পারেন। এর সঙ্গে কানে খুব ছোট্ট টপ আর গলায় লকেট থাকতে পারে। আবার অক্সিডাইস, অ্যান্টিক কালারের ভারী চোকার পরেও স্টাইলে ভিন্নতা আনা যায়। তবে গলায় চোকার পরলে কানে বা হাতে কিছু না পরার চেষ্টা করুন। কান, গলা কিংবা হাতের যে কোনো একটি অংশে ভারী গহনা পরার চলটাই এখন সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। আর যদি পরতেই চান তবে একটি অংশ ভারী গহনা পরলে বাকি গহনাগুলো খুব ছোট বা হালকা ডিজাইনের নির্বাচন করুন। শুধু ওয়েস্টার্ন পোশাকের সঙ্গে নয়, সব ধরনের পোশাকের সঙ্গেই এখন এ সূত্র মেনে গহনা পরার চল চলছে। গৎবাঁধা ট্রেন্ড থেকে বেরিয়ে হালফ্যাশনে কয়েক লহরের চিকন চেইনের সঙ্গে ঝোলানো দুল, চ্যাপটা বা চারকোনা শেপের ঝুমকা, ময়ুর নকশা, কদম, গোলাপ, কাঁঠালিচাপা, পদ্মসহ বিভিন্ন ফ্লোরাল থিমের গহনা চলছে। ফুলেল নকশার পাশাপাশি বিভিন্ন জ্যামিতিক নকশার গহনারও চাহিদা রয়েছে। গরম থেকে শীতে যাওয়ার আগে ঋতু পরিবর্তনের এ সময়টাতে ত্বক বেশ শুষ্ক হয়ে ওঠে। তাই এখন মেকআপের শুরুতেই মুখে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিতে হবে। দিনে গরম থাকলে ওয়াটারবেজড মেকআপ করুন। রাতে যেহেতু একটু একটু ঠাণ্ডা পড়ছে তাই রাতের মেকআপে তরল ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন। হেমন্তে চারদিকে শুষ্ক, ধূসরভাব অনুভূত হয় তাই এ সময়কার মেকআপ হতে হবে শাইনিং ও শিমারী। বর্তমানে নুড রংগুলো চোখের মেকআপে বেশি চলছে। হালকা গোলাপি, পিচ, বাদামি, সোনালি আইশ্যাডো ব্যবহার করতে পারেন রাতের সাজে। ম্যাট লিপস্টিক জনপ্রিয় হলেও এখন যেহেতু ত্বকের আর্দ্রতা এমনিতেই কমে যাচ্ছে, তাই এখনকার জন্য উপযোগী গ্লসি লিপস্টিক। দাওয়াতে চুল কার্ল করে ছেড়ে দিলে ভালো লাগবে। পোশাকের সঙ্গে মানিয়ে গেলে উঁচু করে বেঁধেও নিতে পারেন।

ফেসবুক পেজ

আর্কাইভ

ক্যালেন্ডার

July 2024
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031