রঙঢঙ

হেমন্তের প্রভাব ফ্যাশনেও

মডেল: জ্যোতি মজুমদার

হেমন্তের ফ্যাশন ও শরীরের যত্ন

হ্যালোডেস্ক

শীতের পূর্বাভাস নিয়ে আগমন ঘটে হেমন্তের। কার্তিক এবং অগ্রহায়ণ মাসের সমন্বয়ে আসে হেমন্ত। এই হেমন্তকেই কেন্দ্র করে গাছে গাছে ফোটে নানা ফুল, যার মাঝে আছে মল্লিকা, শিউলি, কামিনী, গন্ধরাজ এবং হিমঝুড়ি। এই ঋতুকে কেন্দ্র করে কৃষকরা মেতে ওঠেন নবান্নের উৎসবে। নানা পিঠাপুলির গন্ধে চারিদিক ভরে ওঠে। এই নবান্নকে কেন্দ্র করে জমে ওঠে মেলা। তাতে থাকে নাগোরদোলা, লাঠিখেলা। পাওয়া যায় মিঠাই, খইসহ নানা মুখোরোচক খাবার। এই ঋতু যেন নানা বৈচিত্র্য নিয়ে আসে আমাদের মাঝে। তবে এতকিছুর সাথে সাথে আসে শুষ্ক বাতাসও। আর এই শুষ্ক বাতাস ত্বক থেকে টেনে নেয় আর্দ্রতা, ত্বক হয়ে পড়ে মলিন। তাই এই সময়ে মেকাপ এবং পোশাকে হতে হয় সচেতন। সেই সাথে খাদ্যাভ্যাসে আনতে হয়ে কিছু পরিবর্তন। চলুন জেনে নেই হেমন্তে কোন বিষয়গুলা মাথায় রাখতে হবে।

পোশাক


হেমন্তের এই সময়ে রাতের একটি নির্দিষ্ট সময় আর সকালের দিকে হিমেল হাওয়া ছুঁয়ে যায়। তাছাড়া বাকি সময়টা ঠান্ডা গরমের দেখা মেলে। তাই এই সময়ে ফুলস্লিভ পোশাক বেশ আরামদায়ক। জর্জেট, সিল্ক, নেট কাপড়ের লং কামিজ, স্কার্ট এই সময়ে বেশ আরামদায়ক। তাছাড়া টি শার্ট কিংবা টপসের সাথে জেগিংস খুব আরামদায়ক এই সময়ে। ছেলেদের কাছে এই সময়ের অন্যতম আকর্ষণ হয়ে দাঁড়ায় ফুলস্লিভ টি শার্ট কিংবা পলো টি শার্ট। ক্যাজুয়াল লুকের টি শার্টের সঙ্গে জিন্স বা সুতি প্যান্ট এই সময় আরামদায়ক। শাড়ির ক্ষেত্রে হেমন্তে বেছে নিতে পারেন সিল্ক শাড়ি। যেমন : সিল্ক শিফন, টাঙ্গাইল সিল্ক, সাউথ ইন্ডিয়ান সিল্ক সহ ইত্যাদি। খাদির শাড়িও পরতে পারেন সেই ক্ষেত্রে উজ্জ্বল রঙ আপনাকে মানাবে এই ঋতুতে।

মেকআপ


এই সময় পাউডার ব্যবহার না করাই ভালো। পাউডারের পরিবর্তে আপনি ব্যবহার করতে পারেন ওয়েল বেইজ ফাউন্ডেশন, বা ক্রিম ফাউন্ডেশন। এই ফাউন্ডেশনের উপর হালকা করে ফেস পাউডার লাগিতে নিতে পারেন। তবে এটি শুষ্ক ত্বকে ব্যবহার না করাই ভালো। চোখের সাজ হতে পারে স্মোকি। এই সময়ে ম্যাট লিপিস্টিক ব্যবহার না করাই ভালো। খুব গ্লেসি আর ময়েশ্চারাইজার সমৃদ্ধ লিপিস্টিক ব্যবহার করুন। বছরের এই সময়টায় চুল নিয়ে আপনাকে একটু বেশি চিন্তা করতে হবে, কারণ এই সময়টায় প্রচুর ধুলোবালি থাকে তাই চুল বেঁধে রাখুন। চাইলে ডোনাট বান কিংবা পলিটেইল করে রাখতে পারেন।

হাতের যত্ন


হাতের চামড়া এই সময়ে সবচেয়ে বেশি কুঁচকে যায়। তাই সকালে এবং রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে হাতে ময়েশ্চারাইজার ক্রিম কিংবা পেট্রোলিয়াম জেলি লাগান। আর সম্ভব হলে ময়েশ্চারাইজারের সাথে গ্লিসারিন মিশিয়ে নিন খুব দ্রুত ফলাফল পাবেন।

পায়ের যত্ন


এই সময় পা ফেটে যায়। এরকম সমস্যায় হালকা গরম পানির বোলে এক চামচ শ্যাম্পু আর লেবুর রস দিয়ে পা ডুবিয়ে রাখুন ১০ মিনিট। এর পর পরিষ্কার করে ময়েশ্চারাইজার লাগান। আর রাতে অবশ্যই পায়ের গোড়ালি পরিষ্কার করে তাতে পেট্রোলিয়াম জেলি কিংবা গ্লিসারিন মাখুন। আর গোসলের ক্ষেত্রে সাবানের বদলে তরল বডিওয়াশ ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।

মুখের যত্ন


এই সময়ের রোদ মুখের ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। তাই কোথাও বের হবার আগে মুখে সানক্রিম মেখে বের হোন। আর মুখধোয়ার ক্ষেত্রে সাবানের পরিবর্তে ফেসওয়াশ ব্যবহার করুন।

খাবারের তালিকা


এই সময় ত্বক ভালো রাখতে সুস্থ রাখতে খাওয়া দাওয়া জরুরি। তাই প্রচুর মৌসুমি ফল আর সবজি খান। সীমের বিচি বরবটি প্রচুর পরিমাণে খান। এতে প্রচুর আমিষ আছে যা আপনার শরীরে শক্তি যোগাবে।

ফেসবুক পেজ

আর্কাইভ

ক্যালেন্ডার

June 2024
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930